সিরাজগঞ্জে শিশু ছাত্র বলাতকারের চাঞ্চল্যকর ঘটনায় মাদ্রাসার শিক্ষক আটক

সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার নলছিয়া গ্রামের মাসুদ রানা তার ছেলে অলিউল্লাহ কে দ্বীনি শিক্ষার জন্য কুমাজপুর দারুল আবরার ক্বওমী মাদ্রাসায় ভর্তি করে।  মাদ্রাসার আবাসিক ছাত্র হিসেবে অলিউল্লাহ গত এক বছর যাবত পড়া লেখা করে আসছিল।

১১ আগস্ট রাতে একই মাদ্রাসার শিক্ষক আবু রায়হান শিক্ষার্থী অলিউল্লাহকে তার কাছে ডেকে নিয়ে ইচ্ছার বিরদ্ধে বলাৎকার করে। বলাৎকারের বিষয়টি প্রকাশ করলে শিক্ষক তাকে প্রাননাশের হুমকি দেয়।  এভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে একাধিকবার ছাত্রটিকে বলাৎকার করে শিক্ষক আবু রায়হান । কয়েক দিন পর আবার কুকর্মের প্রস্তাব দিলে শিক্ষার্থী অলিউল্লাহ তার প্রস্তাবে অসম্মতি জানায়।

ফলে পরদিন সকালে তাকে মারধর করে। মারধরের  পর শিক্ষার্থী অলিউল্লাহ ছুটি চাইলে শিক্ষক ছুটি না দেয়ায় ১৯ আগস্ট শিক্ষার্থী অলিউল্লাহ গোপনে নিজ বাড়ি চলে যায়। বাড়ি গিয়ে তার পরিবারের কাছে শিক্ষক আবু রায়হানের কু-কর্মের কথা খুলে বলে। শিক্ষার্থীর অভিভাবকেরা মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটির কাছে বিষয় টি জানালে কমিটির লোকজন উচিৎ বিচারের আশ্বাস দেয়। কিন্তু আসামী আবু রায়হান আত্ম গোপন করে।

ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে এবং স্থানীয় জনগনের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ থেকে কোনো বিচার না পেয়ে শিক্ষার্থী অলিউল্লাহর পরিবার সলঙ্গা থানায় মামলা দায়ের করে।  এরই ধারাবাহিকতায় ‌র‌্যাব ১২ এর স্পেশাল কোম্পানীর সহকারী পুলিশ সুপার মি. জন রানার নেতৃত্বে  বিভিন্ন গোয়েন্দা তথ্য এবং আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে  অভিযান চালায়।

অবশেষে ২৭ আগস্ট ভোর সোয়া ৫টার দিকে  আসামী আবু রায়হান কে ঢাকার ভাটারা থানার বাড্ডা এলাকা হতে  গ্রেফতার করে। সলঙ্গা থানার নলকা ইউনিয়নের খোলাপাড়া গ্রামের হাসেন আলীর ছেলে আবু রায়হান প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। গ্রেফতারকৃত  আসামীকে সলঙ্গা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ