ধর্ম, বর্ণ, জাত-গোত্রের সীমারেখা ভেঙে পহেলা বৈশাখ পথ চলতে সাহসী করে-জিএম কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক(পল্লীটিভি): বাংলা নববর্ষ ১৪২৮ উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে অবস্থানরত বাংলা ভাষাভাষীদের প্রতি অভিনন্দন জানিয়ে সংসদে বিরোধী দলীয় ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, পুরনো, জরাজীর্ণ এবং অশুভকে পেছনে ফেলে নতুন উদ্যমে সামনে এগিয়ে চলতে পহেলা বৈশাখ অনুপ্রেরণা যোগায়।

বুধবার এক বানীতে তিনি সব বাংলাভাষীর জন্য অফুরান শুভ কামনা প্রকাশ করেন। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ব্যর্থতার গ্লাণি মুছে সাফল্যের সিঁড়ি বেয়ে উজ্জল আলোর রথে চলতে শেখায় পহেলা বৈশাখ।

নববর্ষের বানীতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, পহেলা বৈশাখ হচ্ছে বঙ্গাব্দের প্রথম দিন বা বাংলা নববর্ষ। পহেলা বৈশাখ বাঙালীর মহা ঐক্যের দিন। ধর্ম, বর্ণ, জাত বা গ্রোত্রের সীমারেখা ভেঙে পহেলা বৈশাখের উৎসব আয়োজন জাতিকে এক পথে চলতে সাহসী করে। সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি, সুন্দর ও কল্যাণের জয়গানে শুভ পহেলা বৈশাখকে স্বাগত জানাতে সবাই প্রস্তুত।

জিএম কাদের বলেন, মুঘল সম্রাট আকবরের আমলে কর বা রাজস্ব আদায়ের জন্য বাংলা সন গণনা শুরু হলেও, পহেলা বৈশাখ দিনে দিনে বাঙালী সংস্কৃতির লালন ও বিকাশের অসাধারণ অধ্যায়ে পরিণত হয়েছে। তিনি বলেন, প্রিয় নেতা, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পহেলা বৈশাখকে বাঙালীর প্রাণের উৎসবে পরিণত করতে দিনটি সরকারি ছুটি ঘোষণা করেন। এরপর থেকে বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ মানেই রঙিন উৎসবে বাঙালীর প্রাণের সঞ্চার। এই মহালগ্নে পল্লীবন্ধু এরশাদকে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন তিনি।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, এবার পহেলা বৈশাখ এমন একটি সময়ে হাজির, যখন করোনা ভাইরাস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে সারাবিশ্বে। মৃত্যু আতংক বিশ্বের প্রতিটি মানুষের অন্তরে। তাই, আতংকময় কোভিড-১৯’র কবল থেকে বাঁচতে প্রত্যেকে নিজ ঘরে থেকেই মহান শ্রষ্টার অনুগ্রহ প্রার্থনা করুন। ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন। এই দূর্যোগ কেটে গেলে, আবারো মিলবে মেলা প্রাণের উৎসবে।

করোনা ভাইরাসের মতো মহামারি থেকে রক্ষা পেতে মহান আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করেন সংসদে বিরোধী দলীয় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ